ডায়াবেটিস কি, কি কারণে হতে পারে ও প্রতিকার

0
715

ডায়াবেটিস মূলত কি ?

ডায়াবেটিস একধরনের রোগ আবার রোগ না। ডায়াবেটিস কতগুল লক্ষণকে বলা হয়ে থাকে। ডায়াবেটিস তখননি শনাক্ত করা হয় যখন রক্তে গুলকোজ এর মাত্রা বেড়ে যায়। অথবা প্রসাব এর মাত্রা বেড়ে যায়। স্বাভাবিক রক্তে গুলকোজ এর পরিমাণ ৭.৮-৮.০। যখন রক্তের মধ্যে অথবা প্রসাব এর মধ্যে এই গুলকোজ এর পরিমাণ বেড়েযায় তখন ডায়াবেটিস শনাক্ত করা হয়ে থাকে।

গুলকোজ এর পরিমাণ বেড়ে যাবার কারণ

আমরা যে খাবার গুল খাই তার মধ্যে একটা উপাদান থাকে যার নাম কাৰ্ব-হাইড্রেট ( শর্করা )। ভাত, আলু, গম, চিনি ইত্যাদি হল কাৰ্ব-হাইড্রেট। যখন এই খাবার গুল খওয়া হয় তখন এই খাবার গুল ডাইজেস্ট হয়ে গুলকোজ এ রূপান্তরিত হয়। গুলকোজ থেকে শক্তিতে রূপান্তরিত হয়। গুলকোজ যখন রক্তের মাধ্যমে শরীরের প্রতিটা কোষ এ পৌঁছে যায় এবং শক্তিতে রূপান্তরিত করে। এ কাজটি করতে সাহায্য করে এর একটি অঙ্গ সেটির নাম হল ইন্সুলিন। ইন্সুলিন যদি কোন মানুষ এর শরীরে কম থাকে তাহলে ওই বেক্তির শরীরে গুলকোজ পরিমাণ বেড়ে যায়। গুলকোজ গুল তার শরীরে জমা হতে থাকে। অতিরিক্ত গুলকোজ যখন রক্তের মধ্যে জমা থাকে আর রক্ত পরীক্ষা করলে রক্তের মধ্যে পাওয়া যায়। কিডনির মধ্যে গিয়ে জামা হলে কিডনি অতিরিক্ত গুলকোজ প্রসাব এর মাধ্যমে অতিরিক্ত গুলকোজ বের করে দেয়। এই কারনে প্রসাব পরীক্ষা করলে প্রসাব এর মধ্যে ও গুলকোজ পাওয়া যায়।

ডায়াবেটিস কেন হয় ?

০১. বংশগত কারনে হতে পারে
০২. আমারা নিয়মিত খাবার খাই কিন্তু সে অনুযায়ী পরিশ্রম করি না। যার কারনে নিয়মিত মোটা হয়ে যাই।
০৩. গর্ভবতী মায়ের অনেক সময় ডায়াবেটিস হয়। বাচ্চা জন্ম নেয়ার পরে আবার ঠিক হয়ে যায়।
০৪. অনেক এর ক্ষেত্রে মেডিসিন এর কারনে ও হয়।
০৫. পেনকেরিয়াস এর সমস্যা এর কারনে হতে পারে।

ডায়াবেটিস প্রতিকার এর উপায়

০১.প্রচুর পরিমানে কায়িক পরিশ্রম করতে হবে। প্রতিদিন ৩০-৪০ মিঃ সকালে ও বিকালে ব্যায়াম করতে হবে।
০২. ডায়েট মেনে চলতে হবে। প্রতিটি মানুষ এর জন্য যে পরিমান খাবার প্রযোজন সে পরিমাণ খাওয়া উচিৎ।
০৩. টেনশন কমাতে হবে।

ডায়াবেটিস কমানোর উপায়

০১. ডাক্তার এর পরামর্শ নেয়া এবং ডাক্তার যে মেডিসিন দিবে তা নিয়মিত মেনে খেতে হবে।
০২. করলা খেতে পারেন। মেথি সকালে ও বিকেলে আধা চামচ মুখে নিয়ে চাবিয়ে অথবা পাউডার করে খেতে পারেন। কালজাম খেতে পারেন। নিমপাতার চূৰ্ন খেতে পারেন। এই খাবার গুল আপনার ডায়াবেটিস কমাতে সাহায্য করবে।

ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্রচাপ, হার্ডের সমস্যা একত্রে হলে খুব সাবধানে থাকতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here