আপনি কি ধনী হতে চান..

0
105
আপনি কি ধনী হতে চান

পৃথিবীতে এমন কেউ নাই যে গরিব হতে চায় তো সিম্প্লি আমিও ধনী হতে চাই। কিন্তু ধনী হওয়া এবং ধনী হওয়ার স্বপ্ন দেখা এ দুটির মধ্যে রয়েছে আকাশ পাতাল পার্থক্য।

আজ আমি কয়েকটা কারণ বলব যে কারণে বেশিরভাগ মানুষ ধনী হতে পারছেন না। যদি আপনি এই ভুলগুলো করে থাকেন তবে আপনি স্বপ্নেই ধনী হতে পারেন কিন্তু বাস্তবে নয়। অন্যদের দেখানোর জন্য জিনিস কেনা। আপনার প্রত্যহিক জীবনে যে জিনিসগুলোর প্রয়োজন আছে সেইগুলো কিনুন। যারা অন্যকে দেখানোর জন্য সে কতটা ধনী সে কতটা বড় লোক তার জন্য জিনিস কিনে থাকে এবং মাঝেমধ্যেই সেই জিনিস গুলোকে পাল্টাতে থাকে। আপনার আশে পাশে চোখ বুলালেই দেখতে পাবেন যারা দু মাস অন্তর অন্তর নতুন ফোন কিনে, ছ মাস অন্তর অন্তর বাইক পাল্টায়। এরা বিনা প্রয়োজনে শুধুমাত্র অন্যকে লোভ দেখানোর জন্যই এ অপচয় করে। যদি আপনার মাঝেও এমন অভ্যাস থাকে তবে আপনি ধনী হতে পারবেন না।

আপনার টাকা কি টাকা তৈরি করছে ? এ পৃথিবীতে সাধারণত দুই ধরনের মানুষ হয়। একজন হলো যে ব্যক্তি প্রতিদিন নদী থেকে জল এনে গ্রামে সাপ্লাই দেয় তার মাধ্যমে ইনকাম করে এবং দ্বিতীয় ব্যক্তি যিনি বাড়ি পর্যন্ত পাইপ লাইন বসিয়ে নিয়েছেন এবং সেই পানি বিক্রি করে টাকা ইনকাম করে। এখন প্রশ্ন হল এ দুজনের মধ্যে আপনি কোন জন হতে চাইবেন ? আমার মনে হয় আপনি দ্বিতীয় ধরনের ব্যক্তি হতে চাইবেন। কারণ দ্বিতীয় ব্যক্তি একবার কষ্ট করে ঠিক জায়গায় নিজের টাকা ইনভেস্ট করেছেন। তারপর তার টাকা পুনরায় টাকা বানাতে শুরু করে দিয়েছেন। এটাকে আমরা বলি প্যাসিভ ইনকাম।

প্যাসিভ ইনকাম করার কয়েকটা পথ আপনাকে জানিয়ে রাখি। ধরুন আপনার বাড়ি বাড়তি কোনো ঘর আছে। সেটা কে আপনি ভাড়া দিতে পারেন। এই ঘর থেকে আপনি প্রতি মাসে একটা নির্দিষ্ট অঙ্কের টাকা পেতে থাকবেন। অথবা এ টাকা দিয়ে আপনি দুটো গাড়ি কিনে ভাড়া দিতে পারেন। এছাড়াও আপনি মিউজিক অ্যালবাম বানাতে পারেন। বই লিখতে পারেন এছাড়াও আপনি শেয়ার ব্যাংকে বা মিউচুয়াল ফান্ডে টাকা ইনভেস্ট করে রাখতে পারেন। এই সব জায়গা থেকে প্রতিদিন আপনার টাকা একটু একটু করে বাড়তে থাকবে। যদি আপনার কাছে কোন পেসিভ ইনকামের সোর্স না থাকে তবে আপনি কখনোই ধনী হতে পারবেন না।

নতুন জিনিস না শেখা! বেশির ভাগ মানুষ মনে করে এখন তো আমি বড় হয়ে গেছি নতুন জিনিস শেখার কি প্রয়োজন ? আপনাকে জানিয়ে রাখি বিল গেটস প্রতি বছর 50 টি বই পড়েন অর্থাৎ গড়ে প্রায় 7 দিনে একটি বই।আপনি ভাবুন তো বিল গেটস এর মত মানুষের এখন বই পড়ার কি প্রয়োজন ? কোন না কোন কারণ নিশ্চয়ই আছে যে কারনে তিনি এতো বই পড়েন। নতুন নতুন বই পড়ার ফলে আপনার জ্ঞানের পরিধি আরো বৃদ্ধি পায়। নতুন নতুন বই পড়ার ফলে আপনার ব্রেইনে বিজনেসে উন্নতি করার জন্য নতুন নতুন আইডিয়া আসতে থাকে। আপনি যদি এখনো মনে করেন আপনি সবকিছু পারেন, বই পড়ার কি দরকার ? তাহলে আপনার মত বড় পাগল কেউ নেই।

নির্দিষ্ট আয়! যদি আপনার ব্যাংক একাউন্ট এ মাসের শুরুতে টাকা ঢুকে যায় এবং আপনি ওই টাকা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকেন তাহলে আপনি কখনোই ধনী হতে পারবেন না। কারণ আপনি যে সেলারি বা পারিশ্রমিক পান তা সময়ের উপরে ভিত্তি করে পান। যদি আপনাকে ধনী হতে হয় তাহলে ভালো বিজনেসম্যান না হয় ইনভেস্টর অথবা কোন প্রফেশনাল ফিল্ডে এক্সট্রিম লেভেলের কিছু করতে হবে। আর মজার বিষয় হলো এই যে, এগুলোতে কোনোটাতেই আপনাকে সময় হিসাব করে টাকা দেওয়া হয় না।

আপনাকে পারফরমেন্সের উপর ভিত্তি করে টাকা দেওয়া হয়। আপনি যত ভালো পারফরম্যান্স করবেন তত বেশি টাকা পাবেন। আর ভালো পারফর্ম করার জন্য আপনাকে কম্পিটিটিভ hard-working ফোকাস থাকতে হবে। যেগুলো হয়তো এখন আর আপনার মধ্যে নাই কারণ এখন আপনার অভ্যাস হয়ে গেছে মাসের কোন একটা ডেটে আপনি টাকা পেয়ে পাচ্ছেন। আপনি কম কাজ করলেন বা বেশি কাজ করলেন তাতে কিছু আসে যায় না। এ কারণেই আপনি ধনী হতে পারবেন না। ধনী হতে হলে আপনাকে একটা আয় এর উপর নির্ভর করে থাকলে হবে না, একাধিক আয়ের এর উৎস তৈরি করতে হবে।

বন্ধুরা এই চারটি অভ্যাস আমাদের ধনী হতে বাধাগ্রস্ত করে। এই নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই কারণ আমাদের জন্মই হয়েছে মধ্যবিত্ত পরিবারে। সেখান থেকে কিভাবে আমরা ধনীদের অভ্যাস শিখব ? এটা আমাদেরই দায়িত্ব যদি আমাদের ধনী হতে হয় তবে আমাদের নিজেদের অভ্যাসের পরিবর্তন আনতে হবে। নিজের প্রচেষ্টায় এ মিডিল ক্লাস হেবিট গুলো ছাড়তে হবে এবং রিস হেবিটস গুলো শিখতে হবে।

যেহেতু এ হেবিটস গুলো সহজ সরল সেহতু নিয়মিত প্র্যাকটিসের মাধ্যমে সহজেই আমাদের মনের ভেতর প্রবেশ করাতে পারবো। আমি আশা করছি এগুলো আপনারা সহজেই পারবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here